অধরা

লিখেছেন:টি.রহমান 

| চোখের নিচে কালি কেন?

| কালি নয়,আমাদের ফেলে আসা রাতের আধাঁর এঁকেছি চোখে। কিন্তু তোমার চোখে জল কেন?

| সেই রাতে বৃষ্টি ছিল,ভুলে গেছো হয়ত।খোলা জানালা গলে কয়েকটি ছিটে ছুঁয়েছিল আমাদের,সেখান থেকে দু’ফোটা রেখে দিয়েছিলাম।

| অন্যকিছু বলো!! আজকাল কেমন আছো?

| গতকালে বেঁচে আছি

| যা গেছে,গেছে,ওসব অবসরে চা কাপের ধোঁয়াটে ঘোর।

| আর ভোর রাতে ঘুম কেটে যাওয়া অসম্পূর্ণ স্বপ্ন জোড়া লাগানোর চেষ্টা?স্বপ্নের শেষটা দেখার তীব্র বাসনা!?

| হতে পারে! বাস্তবে আমাদের পথ আলাদা। স্বপ্নের গল্প আমাদের মাঝে স্রেফ বাতুলতা।

| এই মুহূর্তে আমার স্বপ্ন আমার সামনে বাস্তবতা হয়ে দাঁড়িয়ে আছে।

| এসব কথা আমার মাঝে আর দাগ কাটেনা।

| কথার পাহাড়ে সুখ পাইনি আমরা,নীরবতায় খুঁজে পেয়েছিলাম নিজেদের।

| হুম

| তুমি ভালো নেই??

| ভালো আছি বেশ।(অন্যপাশ ফিরে)তোমাকে ছাড়াও ভালো থাকা যায়।

| হা হা

| অদ্ভুত

| আমি না তুমি?

| তোমার থেকে অদ্ভুত কিছু এই জীবনে দেখতে হয়নি।যত্তসব!

| অনেক তো দেখলে মানুষ, অনেক তো ভালো আছো।তাও কাঁদো কেন?

| তোমার মত অমানুষ ছুঁয়ে দিয়েছিল মনের গভীরে,তাই।

| তুমি যেদিন চলে গেলে সেদিন থেকে অমানুষটার আশ্রয়ও হারিয়ে গিয়েছিল।

| তাই?আর আমারও কিন্তু ঠিকানা হয়ে ওঠেনি আজো।

| দেয়ালের দুপাশে দুজনে কাটিয়ে দিয়েছি অনেকটা বছর,
হয়ত কখনো সখনো হাতজোড়া একি বরাবর ছিল,ছুঁতে চাইছিল, মাঝে কেবল ভুলে গড়া দেয়ালটাই শুধু পুরু হচ্ছিল সময় যত বাড়ছিল।

| হুম

| তুমি কিন্তু আমার কথায় সায় দিয়ে যাচ্ছো,বেখেয়াল হয়ে যাচ্ছো কিন্তু।

| আমি ক্লান্ত,তোমার ক্লান্তি নেই?

| কে বলেছে নেই,আমি তো নিস্তব্ধ হতে চাইছি সেই কবে থেকে,তোমার চোখের সামনে চোখ মুজতে চেয়েছি বলে অপেক্ষা করেছিলাম।

| আমাকে সংগে নেবে?এই পৃথিবীতে আমার তো তোমার সাথে থাকা হবেনা।

|গেলাম

| কই যাও,আমি আবার এসেছি দেখো,অনেকদিন পর,তোমার মুখে আমার নাম শুনবো বলে। (শক্ত করে হাতটা ধরে সে,কিন্তু হঠাৎ হাত ছুটে যাওয়ার উপক্রম হয়।)

|তনু(চিৎকার)

ভোর রাতের আবছা নীলাভ আলোয় একইসাথে ঘুম ভেঙে চমকে ওঠে দুটি মানুষ।ওপাশের ডাকা নামটা অনুচ্চারিতই থাকে,কেননা, ভাগ্য নাকি কেবল সাহসী মানুষের পক্ষে থাকে। আষ্টেপৃষ্ঠে বাঁধা স্বাপ্নিকরা হয় গুমরে মরে নতুবা পাথর হয়ে যায়।

শেয়ার করুনঃ
আরো পড়ুনঃ  তবুও জীবনে প্রেম আসুক