অনিদ্রা দূর করবেন যেভাবে

ঘুম নিয়ে সবারই কম বেশি অভিযোগ রয়েছে। অনিদ্রা বা ইনসোমনিয়ার অনেকগুলো কারন রয়েছে। এর মধ্যে ঘুমের ধরন ও ঘুমের আগের খাদ্যাভ্যাস অন্যতম। নির্দিষ্ট কিছু পদ্ধতি অনুসরন করলে আর সঠিক খাবার খেলে অনিদ্রা সমস্যা দূর করা সম্ভব। তো চলুন দেখে নেয়া যাক কিছু টিপস।

ঘুমানোর আগে যেসব খাবার খাবেন না

কফি ও মিষ্টি

মিষ্টি জাতীয় খাবার দেখে যতই খেতে ইচ্ছে করুক, ঘুমের আগে খেতে যাবেন না যেন। আইসক্রিম, চকোলেট, ক্যান্ডিবার ইত্যাদিতে ফ্যাট রয়েছে। ঘুমানোর আগে ফ্যাটযুক্ত কোনো খাবার খাবেন না। একবাটি দুধে কর্নফ্লেক্স মিশিয়ে খাওয়া সকালে আদর্শ নাস্তা হতে পারে, কিন্তু ঘুমাতে যাওয়ার আগে নয়। অতিরিক্ত কার্বোহাইড্রেট ঘুম আসার পক্ষে বাধা হতে পারে। কফির মতো চকোলেটও ঘুম নষ্ট করে।

চিপস, শাক-সবজি ও স্ন্যাকস

শাক-সবজি আমাদের শরীরের জন্য উপকারী একথা সবাই জানি। কিন্তু এতে প্রচুর ফাইবার থাকায় পরিপাক হয় ধীরে। ফলে ঘুম আসতে দেরি হয়। আবার ভাজাপোড়া খাবারে প্রচুর মনোসোডিয়াম গ্লুটামেট থাকে যা ঘুমে সমস্যা তৈরি করে। চিপস, ভুট্টা, ভাজাপোড়া খাবার বা এ ধরনের বিভিন্ন খাবার বাইরে থেকে এনে খাবেন না। এর পাশাপাশি, পাস্তা বা পিৎজা এ ধরনের খাবার ফ্যাটি গোত্রীয়। এগুলো ঘুমের সময় দেহের ওজন বাড়িয়ে দেয়, এমনকী হৃদস্পন্দন অনিয়মিত করতে পারে।

আরো পড়ুনঃ  স্বাস্থ্যকর ইফতারে যা খাবেন


রেড মিট ও পাস্তা

রেড মিট এমনিতেই কম খাওয়া ভালো। রাতে এড়িয়ে যাওয়া আরও ভালো। এটি বিএমআর বাড়িয়ে আমাদের শরীরের তাপ বাড়িয়ে দেয়। ফলে ঘুম গাঢ় হয় না। মাংস হজম হতেও বেশি সময় লাগে। যে কারণে রাতে মাংস না খাওয়া সবচেয়ে ভালো। পাস্তা অত্যন্ত ফ্যাটি খাবার। ঘুমের সময় দেহের ওজন বাড়িয়ে দেয়। ঘুমের আগে ঘরে তৈরি হালকা খাবার খাওয়াই ভালো। কারণ ঝাল বা রিচ খাবার আপনার শরীরে অস্বস্তির কারণ হতে পারে। খাবার খাওয়ার দু’ঘন্টা পরে তা হজম হতে শুরু করে। রাতে রিচ খাবার খেয়ে ঘুমাতে গেলে সারারাত আপনার পাচনতন্ত্র খাবার হজম করার কাজ চালিয়ে যাবে। তাতে ঘুম ভালো হবে না।

যেসব জিনিষ খেয়াল রাখবেন

১. সঠিক উচ্চতার বালিশ নির্বাচন করুন

২. সমান্তরাল বেডে (অসমান নয় এমন) ঘুমান

৩. অতিরিক্ত শব্দ হয় এমন রুমচ ত্যাগ করুন

৪. অন্ধকার ও সঠিক তাপমাত্রার রুমে থাকুন

আরো পড়ুনঃ  শীতে শুস্ক ত্বকের যত্ন

৫. নিয়মিত শরীর চর্চার অভ্যাস করুন

যেসব জিনিষ এড়িয়ে চলবেন

১. অতিরিক্ত খাদ্যগ্রহন এড়িয়ে চলুন

২. ধুমপান/মদ্যপান পরিহার করুন

৩. দিনের বেলা ঘুমাবেন না

৪. অতিরিক্ত চা/কফি পান করা পরিহার করুন

শেয়ার করুনঃ